আজ: সোমবার ৯ই বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২২শে এপ্রিল ২০১৯ ইং, ১৬ই শাবান ১৪৪০ হিজরী

ঠাকুরগাঁওয়ে কাজে তারুন্যের নেতৃত্ব এগিয়ে যেতে চান: রিংকু চৌধুরী

বুধবার, ০৬/০২/২০১৯ @ ৫:১২ অপরাহ্ণ । জনপদের খবর রাজনীতি

মো. মজিবর রহমান শেখ, ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধি ॥ সম্প্রতি অনুষ্ঠিত হয়ে গেল একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। আর এ নির্বাচনের রেশ কাটতে না কাটতেই আবারও দারপ্রান্তে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। নির্বাচন কমিশনের সূত্র মতে আগামী মার্চের ২৪ তারিখে অনুষ্ঠিত হবে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। আর এ নির্বাচনকে সামনে রেখে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হতে আগ্রহী প্রার্থীদের নানামুখী তৎপরতা চলছে। আগ্রহীদের পক্ষে তাদের সমর্থকেরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ইতিমধ্যে বিভিন্ন তৎপরতা চালাচ্ছেন। ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হতে আগ্রহী রয়েছেন এমন কয়েকজনের বিষয়ে ইতিমধ্যে বিভিন্ন মাধ্যমে নাম প্রকাশ পেয়েছে। এর মধ্যে সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রাথী হতে আগ্রহী ৮ জন বিষয়টি একাধিক সূত্রে জানা যায়। পিছিয়ে নেই উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী। অল্প সময়ের মধ্যে জনপ্রিয়তার শীর্ষে যার নাম উঠে এসেছে তিনি হলেন সাবেক ছাত্রনেতা ও বর্তমান কৃষকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ফরহাদ আহাম্মেদ রিংকু চৌধুরী। রিংকুকে এবার উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে পরিষদে দেখতে চাইছেন শিক্ষিত তরুনসহ সর্বস্তরের জনগন। কয়েকজন সাবেক ছাত্রনেতা বলেন, রিংকু পরিবারিক ভাবে একটি রাজনৈতিক পরিবারে বেড়ে উঠেছে। ছাত্রজীবন থেকে সে ওতপ্রোতভাবে ছাত্রলীগের রাজনৈতির সাথে যুক্ত ছিলেন। সে সময়ে তার সাংগঠনিক কর্মকান্ড সকলের মন কেড়েছে। আসন্ন উপজেলা পরিষদে ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হওয়ার মত প্রকাশ করেছে রিংকু চৌধুরী। সকলে যদি রিংকুকে সমর্থন দিয়ে নির্বাচনে বিজয়ী করা যায় সে আগামী প্রজন্মের জন্য নতুন কিছু দেওয়ার চিন্তা ভাবনা লালন করে। পরিচ্ছন্ন রাজনৈতিতে রিংকুর মত সাবেক ছাত্রনেতা যদি মাঠে জনগনের জন্য কাজ করার সুযোগ পায় তাহলে দেশের উন্নয়নের ধারা দ্রুত ত্বরান্বিত হবে বলে অনেকেই জানান। প্রার্থী ফরহাদ আহাম্মেদ রিংকু চৌধুরী জানান, পারিবারিক সূত্র ধরেই রাজনৈতিক অঙ্গনে প্রবেশ করেন সে। বাবা আওয়ামীলীগের রাজনৈতির সাথে স্বাধীনতার পর থেকে সক্রিয় ভাবে কাজ করেছেন। সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ও ইউপি চেয়ারম্যানসহ বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনে গুরুত্বসহকারে দায়িত্ব পালন করে গেছেন। দেশনেত্রী তরুন নেতৃত্বের উপর আস্থা রেখে সংগঠনকে এগিয়ে নেওয়ার কাজ করে চলেছেন। সেই প্রেক্ষিতে ঠাবুরগাঁও সদর উপজেলা অবহেলিত মানুষের পাশে থেকে কাজ করার জন্য প্রার্থী হওয়ার ঘোষনা দিয়েছি। জনগন ভোট তিয়ে জয়ী করলে বেকার যুবক ও নারীদের কর্মসংস্থানের জন্য নতুন কিছু করার বিকল্প রয়েছে আমার। যুব সমাজকে সমাজব্যাধি মাদক থেকে বিতারিত করার জন্য ঐক্যবোধ ভাবে কাজ করার মত ব্যক্ত করেন এই উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী। ফরহাদ আহাম্মেদ রিংকু চৌধুরী ২০০৩ থেকে ২০০৯ পর্যন্ত জেলা ছাত্রলীগ এবং কৃষক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। বর্তমানে ঠাকুরগাঁও জেলা কৃষকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। তার বাবা আনছারুল হক চৌধুরী একজন বীরমুক্তিযোদ্ধা অর্থাৎ মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক স্বাধীনতার পুর্ব থেকে দিনাজপুর জেলা অর্থাৎ ঠাকুরগাও মহকুমা আওয়ামীলীগের সমাজকল্যান সম্পাদক ও কৃষি সম্পাদকের এবং ঠাকুরগাও সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হিসেবে আওয়ামীলীগের দু:সময়ে ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত নিষ্ঠার সহিত দ্বায়িত্ব পালন করেন। রিংকুর নানা খয়রাত হোসেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একজন সহচর, ভাষা সৈনিক ও যুক্তফ্রন্ট সরকারের মন্ত্রী হিসেবে গুরুত্বসহকারে কাজ করে জনগনের প্রাণে আজো বেচে রয়েছেন। তিনিও দীর্ঘদিন থেকে আওয়ামী রাজনীতির সাথে যুক্ত এবং বিভিন্ন লড়াই সংগ্রামে তারও রয়েছে দৃষ্টান্তমুলক ভুমিকা।

ভারতেও দেখা যাবে বিটিভি: তথ্যমন্ত্রী
ঠাকুরগাঁওয়ে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ-মানববন্ধনের জেরে মারপিট