আজ: বৃহস্পতিবার ৭ই চৈত্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ২১শে মার্চ ২০১৯ ইং, ১৩ই রজব ১৪৪০ হিজরী

ঠাকুরগাঁওয়ের অবহেলিত নারীর ক্ষমতায়নকে শক্তিশালী করতে চায়: লিটা

রবিবার, ০৬/০১/২০১৯ @ ১২:৪০ অপরাহ্ণ । জনপদের খবর

মো. মজিবর রহমান শেখ, ঠাকুরগাঁও জেলা  প্রতিনিধি : জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১৯৭৩ সালের জাতীয় সংসদে যে কজন তরুণ সংসদ সদস্য নিজ গুণে আলোকিত হয়ে সততার সঙ্গে মানুষের মধ্যে কাজ করে গেছেন তাদের মধ্যে অন্যতম ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ ও রাণীশংকৈলের মাটি ও মানুষের নেতা সাবেক এমপি আলী আকবর।
তিনিই একমাত্র এমপি ছিলেন যিনি ওই সময় বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের ত্রাণের জন্য সরকারি অনুদানের ৬ হাজার টাকা বঙ্গবন্ধুর হাতে ফেরত দিয়েছিলেন।
আলী আকবর ১৯৭৩ সংসদ সদস্য ছিলেন। ছিলেন বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর। ঠাকুরগাঁও জেলার রাণীশংকৈল উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন। শেষ জীবনে সৎ এই মানুষটি জমি বিক্রি করে রাজনীতি করে গেছেন। সেনাশাসক এরশাদ মন্ত্রী হবার প্রস্তাব দিলেও বঙ্গবন্ধুর এই সৈনিক তা প্রত্যাখান করেছিলেন দৃঢ়চিত্তে।
ঠাকুরগাঁওয়ের অবহেলিত নারীদের ক্ষমতায়নকে ত্বরান্বিত করতে ও মানুষের মাঝে আবারো আলী আকবরকে ফিরিয়ে নিতে চান তার কন্যা জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী এমপি সেলিনা জাহান লিটা।
বাবা আলী আকবর ও মা নূরুন নাহারের সংসারে ৮ ভাই-বােনর মধ্যে লিটা সবার বড়। ছোটবেলা থেকেই রাজনৈতিক পরিমূলে বেড়ে ওঠা সেলিনা জাহান লিটা মনে করেন, ঠাকুরগাঁও -৩ (পীরগঞ্জ-রাণীশংকৈল) আওয়ামী লীগের ঘাঁটি হিসাবে পরিচিত। এখানে ৭০ শতাংশ ভোটারই নৌকার ভোট। এবারের নির্বাচনে জোটের কোন্দলের কারণে আসনটি হাতছাড়া হয়ে গেছে। বিগত সময়ে জোটের প্রার্থী নির্বাচিত হওয়ায় এলাকায়  উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি। এলাকার মানুষ যেকোন কাজের জন্য আমার কাছেই ছুটে আসে। আমি সাধ্যমতো চেষ্টা করে যাচ্ছি। তবে সংরক্ষিত নারী এমপিদের উন্নয়ন কাজের ক্ষেত্রে কিছু সীমাবদ্ধতা রয়েছে।
তাই বাবার আদর্শ বুকে নিয়ে নির্বাচনে নেত্রীর নির্দেশনায় মানুষের দ্বারে দ্বারে গিয়েছিল কিন্তু শেষ পর্যন্ত জোটের অভ্যন্তরীণ কারনে জয়ী হতর পারি নাই। নেত্রী এবারো যদি অবহেলিত আসনটির মানুষের সেবা করার সুযোগ দেন তাহলে এ অঞ্চলের মাটি ও মানুষের পাশে থেকে জাতির পিতার সোনার বাংলা গড়ার প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবো।
উল্লেখ্য, সেলিনা জাহান লিটা রাণীশংকৈল উপজেলা ছাত্রলীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন। বিয়ের পর রাজনীতিতে যোগ দেন। এরপর দুবার বিপুল ভোটে উপজেলা মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর সংরক্ষিত মহিলা আসন ৩০১ এর এমপি হিসেবে মনোনীত করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এবং বর্তমানে জেলা আওয়ামী সহ-সভাপতি হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন।
নিজ নির্বাচনী এলাকায় তৃণমূল আওয়ামী লীগকে গোছানোর পাশাপাশি সরকারের উন্নয়ন কাজ ও নিয়মিত উঠান বৈঠক, স্কুল কলেজে ‘সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, মাদক ও বাল্যবিহাহ প্রতিরোধ স্লোগান নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। ওয়ার্ড পর্যায়ের আওয়ামী মহিলাদের মধ্যে আলাদা একটি ইমেজ তৈরি করেছেন।
সংরক্ষিত এমপি সেলিনা জাহান লিটা বলেন, আমার বাবার আদর্শই লালন করে বেঁচে আছি। সততা, নির্লোভ, সারাজীবন বঙ্গবন্ধুর আদর্শে তিনি বেঁচে ছিলেন। আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওপর পূর্ণ আস্থা রেখেই বলছি, এবারো যদি সুযোগ দেন তাহলে ঠাকুরগাঁও-৩ আসনকে উন্নয়নের রোল মডেল হিসাবে দেশবাসীর সামনে তুলে ধরার সর্বাত্মক চেষ্টা করবো এছাড়া নারীর ক্ষমতায়নে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিবো।
ঠাকুরগাঁওয়ে ব্রীজের ছাঁদ ধ্বসে ২ শ্রমিকের মৃত্যু
হাকিমপুর উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে হারুনকে দেখতে চায় এলাকাবাসী