আজ: বৃহস্পতিবার ৭ই চৈত্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ২১শে মার্চ ২০১৯ ইং, ১৩ই রজব ১৪৪০ হিজরী

লক্ষ্মীপুরে ঐক্যফ্রন্টের গনসংযোগে হামলা আহত-৩০

সোমবার, ২৪/১২/২০১৮ @ ৫:১৭ অপরাহ্ণ । জনপদের খবর রাজনীতি শীর্ষ খবর

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুর-৩ আসনে ঐক্যফ্রন্ট মনোনীত প্রার্থীর গণসংযোগে হামলায় প্রার্থী শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, তিন সাংবাদিক, বিএনপি, যুবদল, ছাত্রদল ও আওয়ামীলীগসহ উভয় পক্ষের অন্তত ৩০জন নেতাকর্মী আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানীকে সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়। অন্যদের হাসপাতালে চিকিৎসা ও ভর্তি করা হয়েছে।
সোমবার সকাল ১১টার দিকে সদর উপজেলার শান্তিরহাট বাজারে নেতাকর্মীদের নিয়ে গণসংযোগকালে এ হামলার ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে কয়েক রাউন্ড গুলি ছুড়ে পুলিশ।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, সোমবার সকালে ঐক্যফ্রন্ট প্রার্থী শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী নিজ বাসা থেকে নেতা-কর্মীদের নিয়ে গণসংযোগে বের হন। এ সময় সদর উপজেলার শান্তিরহাট বাজারে পৌঁছলে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল আমিন ও সাধারন সম্পাদক আবদুর রহমানের নেতৃত্বে নৌকার কর্মীরা অতর্কিতভাবে গণসংযোগে হামলা করে।
হামলাকারীদের লাঠি ও ইটের আঘাতে ঐক্যফ্রন্ট মনোনীত ধানের শীষের প্রার্থী শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, তিন সাংবাদিকসহ নেতাকর্মীরা আহত হয়। সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে হামলার শিকার হন তিন সাংবাদিক। এক পর্যায়ে বিএনপি-আওয়ামলীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় সংঘর্ষে রূপ নেয়। এ সময় বিএনপি, যুবদল, ছাত্রদল, সেচ্চাসেবকদলসহ আওয়ামীলীগ ও যুবলীগের ২৫-৩০জন নেতাকর্মী আহত হয়। আহতদের মধ্যে শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, জেলা বিএনপির যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক নিজাম উদ্দিন ভূঁইয়া, বিএনপি নেতা মাইন উদ্দিন চৌধুরী রিয়াজ, কুশাখালী ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান সালাউদ্দিন মানিক, ছাত্রদল নেতা বদরুল ইসলাম শ্যামল, মিজানুর রহমান পলাশ, হারুনুর রশিদ, ইমতিয়াজ, জাহের, শিমুল, বরকত উল্যা ও আবদুল খালেকসহ ১৫জনকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া আওয়ামীলী কর্মী সিরাজ ও যুবলীগ কর্মী জুয়েল, অরিফুর রহমান, মো. ইউসুফ, রাসেল ও সিরাজকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় দাসেরহাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের এ এস আই আবদুর রাজ্জাক ও এক কনস্টেবলও আহত হয়।
আহত অন্যদেরকে  স্থানীয় ক্লিনিকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এ সময় পুলিশ কয়েক রাউন্ড গুলি ছুড়ে।
শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী অভিযোগ করে বলেন, পূর্ব নিধারিত গণসংযোগ চলাকালে নুরুল আমিন ও আবদুর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশের উপস্থিতিতে অতর্কিতভাবে আওয়ামীলী, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে আমাদের উপর হামলা চালায়। এ সময় আমিসহ আমাদের ২৫ নেতাকর্মী আহত হয়। এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতারের দাবী জানান তিনি। অপরদিকে হামলার কথা অস্বীকার করে কুশাখালী ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল আমিন জানান, বিএনপির নেতাকর্মীরা আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় আওয়ামীলীগ ও যুবলীগের অন্তত ১২-১২জন নেতাকর্মী আহত হয় বলে দাবী করেন তিনি।
দাসেরহাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মো. আবদুল মতিন জানান, কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনা হয়। এ সময় দুই পুলিশ সদস্য আহত হয়। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রনে রয়েছে।
খাগড়াছড়িতে স্বতন্ত্র প্রার্থীর নির্বাচনী কার্যালয়ে আগুন, গুলিতে নিহত ২
কোটা আন্দোলনের ৫ জনকে ছাত্রলীগের মারধর