আজ: বুধবার ৮ই ফাল্গুন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ২০শে ফেব্রুয়ারি ২০১৯ ইং, ১৪ই জমাদিউস-সানি ১৪৪০ হিজরী

ঠাকুরগাঁও হানাদারমুক্ত দিবস আজ

সোমবার, ০৩/১২/২০১৮ @ ৬:০৩ পূর্বাহ্ণ । জনপদের খবর

মো. মজিবর রহমান শেখ, ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধি: ১৯৭১ সালের ৩ ডিসেম্বর হানাদার মুক্ত হয় ঠাকুরগাঁও। এই দিনে ঠাকুরগাঁও মহকুমায় মুক্তিযোদ্ধাদের মরণপণ লড়াই আর মুক্তিকামী জনগণের দুর্বার প্রতিরোধে পতন হয় পাকবাহিনীর।

২১ নভেম্বর থেকে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত যুদ্ধ হয় ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী, পীরগঞ্জ, রানীশংকৈল ও হরিপুর এলাকায়।

২৯ নভেম্বর এ মহকুমার পঞ্চগড় থানা প্রথম শত্রুমুক্ত হয়। এরপর পাকবাহিনীর মনোবল ভেঙে যায়। তারা প্রবেশ করে ঠাকুরগাঁওয়ে। ৩০ নভেম্বর পাকসেনারা বিস্টেম্ফারণ ঘটিয়ে ভুল্লী ব্রিজ উড়িয়ে দেয়। তারা সালন্দর এলাকায় সর্বত্র বিশেষ করে ইক্ষু খামারে মাইন পুঁতে রাখে। মিত্রবাহিনী ভুল্লী ব্রিজ সংস্কার করে ট্যাঙ্ক পারাপারের ব্যবস্থা করে।

পহেলা নভেম্বর কমান্ডার মাহাবুব আলমের নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধারা ঠাকুরগাঁওয়ের দিকে প্রবেশ করে। ২ ডিসেম্বর রাতে ঠাকুরগাঁওয়ে প্রচণ্ড গোলাগুলি শুরু হয়। ওই রাতেই শত্রু বাহিনী ঠাকুরগাঁও থেকে পিছু হটে ২৫ মাইল নামক স্থানে অবস্থান নেয়। ৩ ডিসেম্বর বিজয়ের বেশে ঠাকুরগাঁওয়ে প্রবেশ করেন মুক্তিযোদ্ধারা।

মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক অ্যাডভোকেট বলরাম গুহ ঠাকুরতা বলেন, ২৯ নভেম্বর পঞ্চগড় মুক্ত হয়। খান সেনারা পিছু হটতে থাকে। ঠাকুরগাঁও শহর মুক্ত হয় ডিসেম্বরের ২ তারিখ রাতে। তখন বিজয়ের পতাকা হাতে তুলে প্রয়াত এমপি ফজলুল করিমের নেতৃত্বে শহরে বিজয় মিছিল বের করা হয়।

ঠাকুরগাঁওয়ে পাক হানাদার মুক্ত দিবস পালন
বাংলাদেশ শিক্ষাক্ষেত্রে স্বপ্নপূরণে অগ্রসরমান: এমপি দবিরুল