আজ: শনিবার ৩রা অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ১৭ই নভেম্বর ২০১৮ ইং, ৮ই রবিউল-আউয়াল ১৪৪০ হিজরী

১ নভেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা
৩ বছরে ঝরে গেল পৌনে ৪ লাখ শিক্ষার্থী, এবার অংশ নিচ্ছে ২৭ লাখ শিক্ষার্থী

মঙ্গলবার, ৩০/১০/২০১৮ @ ৪:২৮ পূর্বাহ্ণ । জাতীয় শিক্ষাঙ্গন শীর্ষ খবর

ফাইল ছবি

নিউজ ডেস্ক: আগামী ১লা নভেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষা। এবার রেকর্ডসংখ্যক ২৬ লাখ ৭০ হাজার ৩৩৩ জন শিক্ষার্থী অংশে নেবে পরীক্ষায়। এদিকে তিন বছরের ব্যবধানে ঝরে পড়েছে পৌনে চার লাখ শিক্ষার্থী। এবার জেএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয়া শিক্ষার্থীরা ২০১৫ সালের প্রাথমিক সমাপনীতে পাস করে। আলোচ্য বছরে পাস করেছিল ৩০ লাখ ৪৮ হাজার ৫৪৪ জন শিক্ষার্থী। সে হিসাবে গত তিন বছরে হারিয়ে গেছে ৩ লাখ ৭৮ হাজার ২১১ জন শিক্ষার্থী। গতকাল সচিবালয়ে পরীক্ষার সার্বিক তথ্য তুলে ধরে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, দেশের ২৯ হাজার ৬৭৭টি প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা আগামী ১লা থেকে ১৫ই নভেম্বর পর্যন্ত দুই হাজার ৯০৩টি কেন্দ্রে জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষায় অংশ নেবে। এবার জেএসসি-জেডিসির ২৬ লাখ ৭০ হাজার ৩৩৩ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১৪ লাখ ৪৬ হাজার ৬০১ জন ছাত্রী এবং ১২ লাখ ২৩ হাজার ৭৩২ জন ছাত্র। ছাত্রদের থেকে এবার ২ লাখ ২২ হাজার ৮৬৯ জন ছাত্রী বেশি। আট বোর্ডের অধীনে এবার জেএসসিতে ২২ লাখ ৬৭ হাজার ৩৪৩ জন এবং মাদরাসা বোর্ডের অধীনে জেডিসিতে ৪ লাখ ২ হাজার ৯৯০ জন পরীক্ষা দেবে।

২০১৮ সালের জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষার রুটিন

গত বছর এই পরীক্ষায় ২৪ লাখ ৬৮ হাজার ৮২০ জন অংশ নিয়েছিল জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এবার এই পরীক্ষায় পরীক্ষার্থী বেড়েছে ২ লাখ ১ হাজার ৫১৩ জন। এক থেকে তিন বিষয়ে যারা অকৃতকার্য হয়েছিল তারাও এবার ওইসব বিষয়ে পরীক্ষা দেবে। বিদেশের নয়টি কেন্দ্রে এবার ৫৭৮ জন জেএসসি পরীক্ষায় অংশ নেবে। সকল পরীক্ষার্থীকে নির্ধারিত সময়ের ৩০ মিনিট আগে পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশ করতে হবে। এবারও বাংলা দ্বিতীয় পত্র, ইংরেজি প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র ছাড়া অন্য বিষয়ের পরীক্ষা সৃজনশীল প্রশ্নে হবে বলে জানান নাহিদ।

পরীক্ষা চলাকালে কেন্দ্রের ২০০ মিটারের মধ্যে শিক্ষক, ছাত্র, কর্মচারীরা মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবেন না। নাহিদ বলেন, শ্রবণ প্রতিবন্ধীসহ অন্য প্রতিবন্ধী পরীক্ষার্থীরা এবারও অতিরিক্ত ২০ মিনিট সময় পাবে। এ ছাড়া দৃষ্টি প্রতিবন্ধী, সেরিব্রাল পালসিজনিত প্রতিবন্ধী এবং যাদের হাত নেই তারা শ্রুতি লেখক সঙ্গে নিয়ে পরীক্ষা দিতে পারবেন। এ ছাড়া অটিস্টিক, ডাউন সিনড্রোম এবং সেরিব্রাল পলসিজনিত প্রতিবন্ধী পরীক্ষার্থীদের অতিরিক্ত ৩০ মিনিট সময় বৃদ্ধিসহ শিক্ষক, অভিভাবক বা সাহায্যকারীর বিশেষ সহায়তায় পরীক্ষা দেয়ার সুযোগ দেয়া হবে বলেও জানান শিক্ষামন্ত্রী। পরীক্ষার জন্য গত ২৮শে অক্টোবর থেকে ১৫ই নভেম্বর পর্যন্ত সারা দেশে সব ধরনের কোচিং সেন্টার বন্ধের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। অনুষ্ঠানে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন, মাদরাসা ও কারিগরি বিভাগের সচিব মো. আলমগীর উপস্থিত ছিলেন।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় আপিলের রায় আজ
ঐক্যফ্রন্টের দেয়া চিঠির জবাব দিয়েছে আওয়ামী লীগ